বেলারুশ কাজের ভিসা

বেলারুশ কাজের ভিসা


বেলারুশ হল মধ্যপূর্ব ইউরোপের একটি দেশ। জনসংখ্যার দিক থেকে এটি বিশ্বে ৯৩ তম। এখানে মোট জনসংখ্যার পরিমাণ প্রায় এক লক্ষ ২০ হাজার। মনস্কো হচ্ছে বেলারুশের রাজধানী। দেশটি সরকারি ভাষা হিসেবে ব্যবহার করা হয় রুশ ভাষাকে।

খুবই অল্প মানুষ বসবাস করলেও বিশ্বের শিক্ষিত দেশগুলোর মধ্য থেকে এটি অন্যতম। বিশেষজ্ঞরা বিশ্বের শীর্ষ শিক্ষনীয় দেশের তালিকায় রেখেছেন বেলারুশকে। দেশটির মানুষ অত্যন্ত সুন্দর এবং অতিথি আপ্যায়ন করতে ভালোবাসে, জানলে অবাক হবেন যে দেশটিতে পুরুষের তুলনায় মহিলাদের সংখ্যা অনেকটাই বেশি।

বেলারুশ দেশ সম্পর্কে আমরা কিছু জানলাম এবার আসব বেলারুস কাজের ভিসা নিয়ে। বাংলাদেশ থেকে অনেকেই বেলারুসে কাজের ভিসায় যেতে চান। কিন্তু তারা জানেন না কোন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বেলারুশের কাজের ভিসা পাওয়া যায়। শুধু কাজের ভিসা পাওয়ার সিস্টেম না, সেখানে গিয়ে কেমন বেতন হবে বা কোন ধরনের কাজ পাওয়া যাবে এ সম্পর্কেও অনেকেই জানেন না। তাই আপনাদেরকে জানানোর জন্যই আমরা চলে এসেছি। আজকে আপনাদেরকে ভিসা সম্পর্কে একটি বিস্তারিত তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করব। তাহলে আসুন শুরু করা যাক।

বেলারুশ কাজের ভিসা

আমাদের সবারই একটা লোভ থাকে ইউরোপে গিয়ে কাজ করে ভালো অর্থ কামানোর। তবে এই লোককে যদি আপনি সামলাতে না পারেন তাহলে কঠোর সময় পার করতে হবে। আমরা অনেকেই মনে করি ইউরোপের দেশ বেলারুসে গিয়ে খুব সহজেই কাজ করা যায়। এবং অনেক ভাল পরিমাণ ইউরো ইনকাম করা যায়।

কিন্তু যারা এ ধরনের ধারণা নিয়ে বেলারুশ যাওয়ার কথা ভাবতেছেন তারা অনেক ভুল করতেছেন। কারণ বেলারুশ এমন একটা দেশ যেখানে ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক উন্নত না। এবং এটাও জানলে অবাক হবেন যে বেলারুশ কোন সেনজেনভুক্ত দেশ নয়।

তবে সেখানে গিয়ে অনেক বাঙালি খুব সহজেই কাজ করে অর্থ উপার্জন করে যাচ্ছে। তবে বেনারস কাজের ভিসা পেতে হলে আপনাকে মানতে হবে বেশ কিছু নিয়ম নীতি। আসুন দেখে নেই কোন পদ্ধতিতে বেলারুশ কাজের ভিসা পাওয়া যায়।

ভিসা ছাড়াই বেলারুশ যাওয়ার সুযোগ

অনেকেই ভাবতেছেন ভিসা ছাড়া কিভাবে বেলারুশ যাওয়া সম্ভব। তবে আমরা বলছি অবশ্যই সম্ভব।বেলারুশ সরকার একটি নতুন বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে যেখানে ৭০ টি দেশের একটি ছোট্ট তালিকা দেওয়া আছে। বিশ্বের এই ৭০ টি দেশের মধ্যে থেকে যেকোন মানুষ ভেসে ছাড়াই পৌঁছাতে পারবে  বেলারুশ।

তবে অনেকেই ভেবে থাকেন যে ভিসা ছাড়া সে দেশে যাওয়ার পর কোন একটি কাজের মাধ্যম খোঁজে নেবেন। আসলে বিষয়টা এমন নয়। ভিসা ছাড়া সে দেশে যাওয়ার সুযোগ তৈরি করার পেছনে একটি কারণ হলো তাদের একটি উৎসব রয়েছে। এই উৎসবকে কেন্দ্র করে তারা ভিসা ছাড়া সে দেশে যাওয়ার অনুমোদন দিচ্ছে। তবে আপনি গিয়ে যদি সেখানে কাজ করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই ওয়ার্ক পারমিট সংগ্রহ করতে হবে।

আর যদি সে দেশে থাকতে না চান তাহলে আপনাকে বিকল্প প্রক্রিয়ায় লিথুনিয়া অথবা পোল্যান্ডে চলে যেতে হবে।তবে সেখানে রয়েছে বাড়তি কিছু ঝামেলা।গুনতে হবে অনেক টাকা তবে বেলারুশ গিয়ে খুব বেশি টাকা ইনকাম করা কিন্তু সম্ভব নয়। চলুন দেখে নেওয়া যাক বেলারুশ কাজের বেতন কেমন।

বেলারুশ কাজের বেতন কত

২০ থেকে ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত বেতন পাওয়া যায় বেলারুশে। তবে সেখানে গিয়ে আপনি কোন ধরনের কাজ করতেছেন সেটার উপরেই মূলত আপনার বেতন নির্ভর করে।

ইউরোপের দেশগুলোর তুলনায় যদিও এখানে বেতন কম তবে এখানে রয়েছে ব্যবসা করার সুবর্ণ কিছু সুযোগ। চাইলেই আপনি এদেশে বেশ কিছু ব্যবসা শুরু করতে পারবেন। যদিও ব্যবসা শুরু করার জন্য বেশ কিছু রিকোয়ারমেন্ট প্রয়োজন হয়। তবে সেগুলো সঠিকভাবে প্রদান করতে পারলে আপনি সেখানে খুবই চিন্তামুক্তভাবে ব্যবসা করতে পারবেন।

বেলারুশ কোন কাজের চাহিদা বেশি

সাধারণভাবে বেলারুশে যারা শ্রমিক ভিসায় যায় তাদেরকে কনস্ট্রাকশন , কৃষি এবং হোটেলের কাজ দেওয়া হয়। যদিও এগুলো ছাড়াও অনেক কাজ রয়েছে, তবে বিশেষভাবে বাঙালিদেরকে এই তিন ধরনের কাজে বেশি নিয়োগ দেওয়া হয়।

তবে আপনি যদি বিশেষ কোনো কাজে পারদর্শী হয়ে থাকেন, সেক্ষেত্রে আপনার দক্ষতা প্রদর্শন করে উক্ত কাজে যুক্ত হতে পারেন। মনে রাখবেন আপনি যত বেশি রুশ ভাষায় পারদর্শী হবেন দেশটিতে গিয়ে তত বেশি উপার্জন করতে পারবেন।

বেলারুশ ভিসা পেতে কি কি লাগে

  • একটি পাসপোর্ট প্রয়োজন হবে
  • জাতীয় পরিচয় পত্র থাকতে হবে
  • ছয় মাসের একটি ব্যাংক স্টেটমেন্ট দেখাতে হবে
  • ভিসা আবেদন ফরম থাকতে হবে
  • বিদেশ যাওয়ার কারণসমূহ উল্লেখ করতে হবে
  • সরকারি কর্মকর্তা হলে সেখান থেকে একটি চিঠি নিতে হবে
  • কোভিড ১৯ সার্টিফিকেট থাকতে হবে
  • সাদা ব্রেকগ্রাউন্ডের কিছু পাসপোর্ট সাইজের ছবি
  • মনে রাখবেন ব্যবহারকিত ছবি যেন তিন মাসের অধিক পুরনো না হয়
  • এয়ারলাইন্স টিকেট

বেলারুশ যেতে কত টাকা লাগে

বেলারুশ যেতে চার থেকে ছয় লক্ষ টাকা লাগে। তবে আপনি বেলারুশ কোন ধরনের ভিসা নিয়ে যেতে চান সেটার উপর আপনার খরচ নির্ধারণ করা হয়। আপনি যদিও ওয়ার্ক পারমিট ভিসার জন্য যান তাহলে প্রায় পাঁচ থেকে ছয় লক্ষ টাকা খরচ হবে। অপরদিকে টুরিস্ট ভিসা বা স্টুডেন্ট ভিসায় যেতে হলে খরচ ৩ লক্ষ টাকার মধ্যেই থাকবে।

বেলারুশ ভিসা সতর্কতা

অনেক বাঙালি আছে যারা দালালের মাধ্যমে বেলারুশ যেতে চান। তারা ভাবেন বেলারুশে অল্প টাকার মাধ্যমে গিয়ে সেখান থেকে অন্য কোন দেশে পাড়ি জমানোর। কিন্তু এটা কতটা ভয়ানক ব্যাপার সেটা তারা নিজেরাও অনুমান করতে পারেনা। পরিবার আত্মীয়-স্বজন সবাইকে ছেড়ে অবৈধ পথে একটি দেশ পাড়ি দেওয়া সহজ কথা নয়। তাই আপনার মনের মধ্যে যদি এ ধরনের কোন পরিকল্পনা থাকে তাহলে এখন থেকেই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করুন।

 অনেকেই ভেবে থাকেন বেলারুশ যাওয়ার পর সেখান থেকে পোল্যান্ড বা লিথুনিয়া যাবেন। কিন্তু বর্তমান সময়ে পোল্যান্ড এবং লিথুনিয়া সরকার তাদের সীমান্তে নিয়ে এসেছে কড়া নিরাপত্তা। এ ধরনের অবস্থায় কোন ভাবে আপনি বেলারুশ থেকে তৃতীয় দেশে যেতে পারবেন না। তাই যাবার আগে অবশ্যই ভেবে দেখবেন কোথাও ভুল হচ্ছে কিনা। তবে একটি বিষয় হচ্ছে বেলারুশে গিয়ে বেতন কম হলেও সেখানে কিন্তু ব্যবসা করার দারুণ সুযোগ থাকবে। সেখানে প্রচুর ভারতীয় ,শ্রীলংকান এবং বাংলাদেশী নাগরিক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত আছে। 

আপনি চাইলে তাদের সাথে যোগাযোগ করে কোন কাজ নিতে পারেন অথবা ব্যবসার কোন পথ তৈরি করতে পারেন। তবে মনে রাখবেন অবৈধ পথে দালালের মাধ্যমে কোন ভাবেই তৃতীয় কোন দেশে যাওয়ার চেষ্টা করবেন না। কারণ বেলারুস অনেক আগে থেকেই উচ্চ শাস্তি দিতে প্রস্তুত থাকে। বেলারুসে সর্বোচ্চ শাস্তি প্রয়োগ করা হয়। তাই এ ধরনের ভুল করা থেকে অবশ্যই বিরত থাকতে হবে।

FAQ

বাংলাদেশ থেকে বেলারুশ বিমান ভাড়া কত?

উত্তরঃ- ৮০ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকার মধ্যেই বাংলাদেশ থেকে বেলারুশ বিমানে পৌঁছাতে পারবেন।

বেলারুশ মহাদেশে অবস্থিত?

উত্তরঃ- বেলারুশ ইউরোপ মহাদেশে অবস্থিত।

বেলারুশ সেনজেনভুক্ত কিনা?

উত্তরঃ- বেলারুশ সেনজেন ভুক্ত দেশ নয়

বেলারুশের জনসংখ্যা কত?

উত্তরঃ- ২০২১ সালের রিপোর্ট অনুযায়ী বেনারসে ৯.৩৪ মিলিয়ন জনসংখ্যা রয়েছে।

বেলারুশের আয়তন কত?

উত্তরঃ- বেলারুশের আয়তন হলো ২ লক্ষ ৭ হাজার ৬০০ বর্গ কিলোমিটার ।

বেলারুশ কত সালে স্বাধীনতা লাভ করে?

উত্তরঃ- ১৯৯১ সালে বেলারুশ স্বাধীনতা লাভ করে


আরো জানতে ভিজিট করুন

নবীনতর পূর্বতন