জাপান কাজের ভিসা

জাপান কাজের ভিসা

বর্তমান সময়ে বাংলাদেশিরা বিভিন্ন দেশে কাজ করতে যাচ্ছেন। তেমনিভাবে অনেকেই জাপানে কাজ করতে যাচ্ছেন আবার অনেকেই কাজরত অবস্থায় রয়েছেন। যারা জাপানে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে যাবেন বলে ভাবছেন তারা মূলত এই দেশটি সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হয়ে থাকেন। অনেকে অনেক রকম তথ্য জানতে চান।

আজকের আর্টিকেলটি জাপান সংক্রান্ত আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর নিয়ে সাজানো হয়েছে। আপনার মূলত এই দেশটি সম্পর্কে যে সকল বিষয়গুলো জানতে চান ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে যাবার পূর্বে সকল বিষয় জানতে পারবেন। তো চলুন দেরি না করে জাপান ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সংক্রান্ত সকল তথ্যগুলো জেনে নেওয়া যাক।

জাপান কাজের ভিসা

জাপান পৃথিবীর অন্যতম একটি আধুনিক রাষ্ট্র। জাপানে রয়েছে উন্নতি প্রযুক্তি সহ দক্ষ জনশক্তি। জাপান প্রতিবছর বিভিন্ন দেশ থেকে বিভিন্ন কাজের জন্য শ্রমিক নিয়ে থাকেন। অনেক বাংলাদেশী রয়েছে যারা জাপানে কর্মরত অবস্থায় রয়েছেন। আবার অনেকেই ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে জাপানের উদ্দেশ্যে রওনা দিচ্ছেন। বর্তমানে জাপানি ভিসার জন্য আপনারা সরকারিভাবে বিএমইটি রেজিস্ট্রেশন করে আবেদন করতে পারেন।

আজকের আর্টিকেল থেকে আপনারা জাপান সংক্রান্ত যে সকল তথ্যগুলো জানতে পারবেন তা হল। জাপানে যেতে কত টাকা খরচ হতে পারে, জাপানে যেতে কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন হতে পারে এছাড়াও জাপানে কাজের বেতন কত, জাপানে কেমন ধরনের কাজ রয়েছে এবং কোন কাজগুলো চাহিদা বেশি রয়েছে। এছাড়াও আর অন্যান্য তথ্য জানতে পারবেন। এই সকল তথ্যগুলো নিম্নে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হলো।

জাপান যেতে কত টাকা লাগে

জাপান যেতে খরচ হয় মূলত ৮ লক্ষ টাকার মতো। কিছু কিছু ক্ষেত্রে আরো কম অথবা বেশি টাকা খরচ হতে পারে। তবে আপনি যদি এজেন্সির মাধ্যমে সাধারণভাবে যেয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার ৮ লক্ষ টাকার মতো খরচ হবে।

জাপান যেতে কত টাকা লাগে এটা একটি কমন প্রশ্ন। প্রায় সকলেই এই প্রশ্নটি করে থাকেন। আপনারা যে যে ক্যাটাগরির ভিসা নিয়ে যান না কেন সকলেই জানতে চান কত টাকা খরচ হয়। ভিসার ক্যাটাগরের উপর নির্ভর করে খরচ কম বেশি হয়ে থাকে। ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে যদি আপনারা যান সে ক্ষেত্রে আপনাদের ৮ লক্ষ টাকা খরচ হবে।

জাপান কাজের বেতন কত

জাপান কাজের বেতন বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে। অর্থাৎ বিভিন্ন রকম কাজের জন্য বিভিন্ন রকম বেতন নির্ধারণ করা হয়। তবে আপনি যে কাজে করেন না কেন সেখানে থেকে আপনারা প্রতি মাসে আয় করতে পারবেন ৮০ হাজার থেকে এক লক্ষ টাকা বা তারও বেশি।

এই সকল বিষয়গুলো আপনাদের সকলেরই জানা উচিত। এই সকল বিষয়গুলো যদি আপনাদের জানা থাকে তাহলে আপনারা পূর্ব থেকে বুঝতে পারবেন সেখানে গিয়ে আপনারা কত টাকা আয় করতে পারবেন কত টাকা সেভ করতে পারবেন ইত্যাদি।

জাপানে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পেতে কি কি যোগ্যতার প্রয়োজন হবে

জাপান একটি উন্নত রাষ্ট্র। এ দেশটিতে ভিসা পেতে হলে বেশ কিছু যোগ্যতার প্রয়োজন। আপনি যদি ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে এই দেশটিতে যেতে চান তাহলে আপনার যে সকল যোগ্যতা গুলোর প্রয়োজন হবে তা নিম্নে দেওয়া হল।
  • প্রথমে যে যোগ্যতার প্রয়োজন হবে আপনি যে বিষয়ে কাজ করতে যাবেন সেই বিষয়ে দক্ষ হতে হবে।
  • জাপানি ভাষা শেখার প্রয়োজন হতে পারে। ইংরেজিতে কিছুটা হলেও দক্ষ হওয়ার প্রয়োজন হবে।
  • এই দেশটিতে যাবার জন্য টি টি সি কেন্দ্র গুলোর মাধ্যমে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে আবেদন করতে হবে।
  • আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসি বা এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।
মূলত জাপানের ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিতে চাইলে আপনার এই সকল যোগ্যতা গুলোর প্রয়োজন হবে।

জাপানে যেতে কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন হয়

জাপান যেতে হলে প্রয়োজনীয় বেশ কিছু কাগজপত্র লেগে থাকে। যে সকল ডকমেন্টগুলো প্রয়োজন হয় সেগুলো হল।
  1. সর্বনিম্ন ছয় মাস মেয়াদে একটি বৈধ পাসপোর্ট।
  2. জাতীয় পরিচয় পত্র।
  3. ভিসা আবেদন পত্র।
  4. সদ্য তোলা ছবি।
  5. ব্যাংক স্টেটমেন্ট।
  6. আপনি যে বিষয়ে কাজ করতে যাবেন সেই কাজের বিষয়ে দক্ষতার প্রমান পত্র।
  7. মেডিকেল রিপোর্ট।
  8. পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট।
  9. জাপানি ভাষা শিক্ষা সনদ।
  10. কোম্পানিতে কাজ করতে যেতে চান সেই কোম্পানির অফার লেটার।
  11. করোনার টিকা কার্ড।


জাপানে একজন শ্রমিক প্রতি মাসে কত টাকা আয় করতে পারেন

জাপানে কাজ করে প্রতি মাসে আয় করতে পারেন ৮০ হাজার থেকে শুরু করে এক লক্ষ বা তার ও বেশি টাকা। বিভিন্ন কাজের জন্য বিভিন্ন রকম বেতন নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। আপনি যেমন কোয়ালিটির কাজ করবেন আপনাকে তেমন বেতন প্রদান করা হবে।

জাপানে কোন কাজের চাহিদা বেশি রয়েছে

জাপান একটি উন্নত প্রযুক্তি নির্ভর দেশ। যে দেশটিতে বিভিন্ন দেশ থেকে বিভিন্ন কাজের জন্য শ্রমিক এসে থাকেন। বাঙ্গালিরা ও সেখানে গিয়ে বিভিন্ন ধরনের কাজ করেন। যে সকল কাজগুলোর চাহিদা বেশি রয়েছে সে সকল কাজগুলো নিম্নে উল্লেখ করা হলো।
  • কম্পিউটার অপারেটর
  • মেকানিক্যাল
  • টেকনিশিয়ান
  • ইলেকট্রিশিয়ান
  • হোটেল ভাই
  • অটোমোবাইল মেকানি
  • ড্রাইভিং
  • ক্লিনার
  • কনস্ট্রাকশন
  • ডার্ড
  • ফুড ডেলিভারি
  • স্টোর কিপার ইত্যাদি।

জাপান কাজের ভিসা | জাপান যেতে কত টাকা লাগে |

জাপানে কয় রকম ক্যাটাগরির ভিসা নিয়ে যাওয়া যায়

জাপানে আপনারা বেশ কয়েক ধরনের ক্যাটাগরির ভিসা নিয়ে যেতে পারবেন। যে সকল বিষয়গুলো চালু রয়েছে জাপান যাবার ক্ষেত্রে সেই সকল ভিসা গুলো নিম্নে উল্লেখ করা হলো।
  • ওয়ার্ক পারমিট ভিসা
  • স্টুডেন্ট ভিসা
  • বিজনেস ভিসা
  • টুরিস্ট ভিসা
  • ফ্যামিলি ভিসা ইত্যাদি।

ভিসা প্রসেসিং হতে কতদিন সময় লাগে

অনেকেই অনেক ধরনের ক্যাটাগরির ভিসা নিয়ে জাপানে যেতে চান। অনেকে জানতে চান ভিসা প্রসেসিং এর সময় কতদিন লাগতে পারে। জাপানের ভিসা প্রসেসিং হতে সময় লাগে ১০ থেকে ১৫ কর্মদিবস। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে সময় বেশি লাগতে পারে। যদি সকল রকমের সঠিক থাকে তবে এই সময়ের মধ্যে সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়।

জাপানে বাঙালিরা কি কি কাজ করেন

জাপানে বাঙালিরা অনেক ধরনের কাজ করে থাকেন। আপনারা যারা বাংলাদেশ থেকে সেখানে কাজ করতে যেতে চান তাদের সকলের জানা উচিত সেখানে গিয়ে বাঙালীরা কি ধরনের কাজ করে। তাহলে চলুন জেনে আসি কি ধরনের কাজ করেন।
  • কম্পিউটার অপারেটর
  • মেকানিক্যাল
  • টেকনিশিয়ান
  • ইলেকট্রিশিয়ান
  • হোটেল ভাই
  • অটোমোবাইল মেকানি
  • ড্রাইভিং
  • ক্লিনার
  • কনস্ট্রাকশন
  • ডার্ড
  • ফুড ডেলিভারি
  • স্টোর কিপার ইত্যাদি।

জাপানের মুদ্রার মান কেমন

জাপানের মুদ্রার নাম ইয়েন। বাংলাদেশের মুদ্রার চেয়ে জাপানের মুদ্রার মান কম। অর্থাৎ বাংলাদেশের এক মুদ্রা সমান জাপানি ১.৩৫ মুদ্রা। তবে মুদ্রার মান পরিবর্তনশীল। তাই বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রকম হতে পারে। আপনারা মুদ্রার মান সম্পর্কে আপডেট তথ্য জানতে চাইলে গুগলের সহায়তা নিতে পারেন।


FAQ

জাপান ওয়ার্ক পারমিট ভিসা চালু রয়েছে নাকি নাই?

আপনারা অনেকেই এ বিষয়টি জানেন না। জাপানের ভিসা চালু রয়েছে। আপনারা যে কোন সময় যেকোনো ক্যাটাগরিবি হিসাবে জাপানে প্রবেশ করতে পারেন।

জাপান কাজের ভিসার দাম কত?

জাপান ৮ লক্ষ টাকার মতো। তবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে দাম কম অথবা বেশি হতে পারে। বিভিন্ন ক্যাটাগরির ভিসার দাম বিভিন্ন রকম। আপনারা যে ক্যাটাগরির ভিসা নিয়ে যেতে চাচ্ছেন সেই ক্যাটাগরির ভিসা সংক্রান্ত তথ্য গুগল থেকে দেখে নিতে পারেন।

জাপানি ভাষার নাম কি?

অনেকেই জাপানি ভাষার নাম জানেন না। জাপানি ভাষার নাম জাপানি। অর্থাৎ তারা জাপানি ভাষায় কথা বলে থাকে।

জাপানের রাজধানীর নাম কি?

জাপানের রাজধানীর নাম টোকিও। টোকিও জাপানের রাজধানী এবং বৃহত্তম শহর।

নবীনতর পূর্বতন